(Singer K. K. Wiki) কে.কে. এর জীবনী 2023( K. K. All Songs, Award, Full Biography in Bengali)

কে. কে. কে,মৃত্যুর কারণ,কর্মজীবন, জন্ম তথ্য, শিক্ষাগত যোগ্যতা, বয়স, কে.কে.এর গানের লিস্ট, বৈবাহিক অবস্থা,গার্লফ্রেন্ড এছাড়াও কে.কে. এর সম্বন্ধে কম জানার তথ্য(K. K. Who, Cause of Death, Career, Birth Details, Educational Qualification, Age, KK Song List, Marital Status, Girlfriend Also Less Known About K.K.) সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো

কে.কে. এর জীবনী(K K Biography In bengali)
K K

আপনি কি কি চেনেন? কে কে হলেন ভারতের একজন প্লেব্যাক গায়ক।যিনি মাত্র 54 বছর বয়সে কলকাতায় একটি লাইভ পারফরম্যান্সে মারা যায়।আপনি যদি কে.কে. এর জীবনী সম্পর্কে জানতে আগ্রহী তাহলে আমাদের এই আর্টিকেলটি পড়ুন।আমাদের এই আর্টিকেলে কে.কে. এর জীবনের অনেক না জানা তথ্য সম্পর্কে জানতে পারবেন।

Table of Contents

কে. কে. এর জীবনী(K.K. Biography)

কে. কে. কে ছিলেন?(Who was K. K.?)

কে.কে. ওরফে কৃষ্ণ কুমার কুন্নাথ হলেন একজন ভারতীয় প্লেব্যাক গায়ক।যিনি হিন্দি, তামিল,বাংলা,মারাঠি,কন্নড়,তেলেগু এছাড়াও বিভিন্ন ভাষায় গান গেয়েছেন।কে.কে.ওরফে কৃষ্ণকুমার কুন্নাথ এর কর্মজীবন শুরু হয় বিজ্ঞাপনে জিংগেলের জন্য গান গেয়ে।মাত্র চার বছরের ব্যবধানে 11 টি ভারতীয় ভাষাতে 3500 টিরও বেশি জিংগেল গান গেয়েছেন। A.R. এর মাধ্যমে চলচ্চিত্রে আত্মপ্রকাশ করেন কে. কে. ওরফে কৃষ্ণকুমার কুন্নাথ

কে. কে. ওরফে কৃষ্ণকুমার কুন্নাথ 500 টিরও বেশি হিন্দি ভাষাতে এবং 200 টা বেশি বাংলা, তামিল,কন্নড় এবং মালায়ালাম ভাষাতে গান গেয়েছেন।

অরিজিৎ সিং, এ আর রহমান এর মত বড় বড় সুরকাররা কে.কে. গানের প্রশংসা করেন।

কে.কে. এর বয়স এবং জন্ম তথ্য (Age and Birth Information of K.K)

প্রকৃত নাম কৃষ্ণ কুমার কুন্নাথ
 ডাকনামকে কে
জন্ম তারিখ23 আগস্ট 1968
বয়স(2023  সাল অনুযায়ী)54 বছর
জন্মস্থান দিল্লি,ভারত
মৃত্যু31 মে 2022
রাশিচক্রকুমারী
 ধর্মহিন্দু
জাতীয়তাভারতীয়
পেশাপ্লেব্যাক গায়ক
সংগীতের ধরনইন্ডিয়ান পপ,রক মিউজিক,বলিউড মিউজিক

শারীরিক পরিসংখ্যানএবং অন্যান্য তথ্য(physical statistics)

আপনি কি এই জনপ্রিয় প্লেব্যাক গায়কের শারীরিক পরিসংখ্যান সম্বন্ধে জানতে আগ্রহী তাহলে নিচে টেবিলটি দেখুন-

উচ্চতা সেন্টিমিটারে-165 সেমি 
 মিটারে- 1.65 মি
 ফুট ইঞ্চি-5’5’’
 ওজনকিলোগ্রামে- 61 কেজি( জীবনের শেষ অবস্থায়)
 শারীরিক আকার মিডিয়াম
চোখের রংকালো
 চুলের রংকালো

 পরিবার এবং আত্মীয়-স্বজন(Family and relatives)

আপনি কি এই ভারতীয় প্লেব্যাক গায়কের পরিবার এবং আত্মীয়-স্বজন সম্পর্কে জানতে আগ্রহী তাহলে নিচের টেবিলটি দেখুন-

 বাবার নামসি এস নায়ার
 মায়ের নামকুন্নাথ কনকভল্লি 
ভাইনেই
বোননেই
স্ত্রীজ্যোতি লক্সমী কৃষ্ণ( পেশাদার চিত্রশিল্পী)
পুত্রনকুল কৃষ্ণ কুন্নাথ (নায়ক সুরকার সংগীত প্রযোজক)
কন্যাতমরা কুন্নাথ (গায়ীকা, সংগীত সুরকার, সংগীত প্রযোজক)

 শিক্ষাগত যোগ্যতা(Educational qualification)

ভারতের এই নামকরা প্লেব্যাক গায়ক ছোট থেকেই পড়াশোনাতে খুবই ভালো ছিলেন।তিনি পড়াশুনোর পাশাপাশি অন্যান্য প্রতিযোগিতামূলক কর্মকাণ্ডেও পিছিয়ে ছিলেন না।এনার শিক্ষাগত যোগ্যতা বলতে দিল্লির কিরোরি মাল কলেজ থেকে বাণিজ্যে স্নাতক করেন।

বিদ্যালয়মাউন্ট  সেন্ট মেরি স্কুল, নিউ দিল্লি
 কলেজ কিরোরি মাল কলেজ, দিল্লী
 শিক্ষাগত যোগ্যতাবাণিজ্যে স্নাতক

 কর্মজীবন(Career) – কে. কে. এর জীবনী

ছোটবেলা থেকেই কে কে পড়াশুনাতে খুবই ভালো ছিলেন তো কে.কে. এর ইচ্ছে ছিল একজন ডাক্তার হওয়ার।কে. কে. মাত্র 12 বছর বয়সে একটি পাবলিক পারফরম্যান্স করেন। সেই পাবলিক পারফরমেন্সে তার কন্ঠ মানুষ ভালোবাসেন ফলস্বরূপ দিল্লির বিভিন্ন সংস্থার বিভিন্ন প্রোগ্রামে গান গাইতে শুরু করলেন।কে. কে. এবং তার কিছু বন্ধু মিলে একটি রক ব্যান্ড ও শুরু করেছিলেন.মিউজিক ইন্ডাস্ট্রি তে আসার আগে কে.কে.(K.K.) মুম্বাইয়ের একটি হোটেলে মার্কেটিং এক্সিকিউটিভ পদে কাজ করেছেন।

মিউজিক ইন্ডাস্ট্রিতে প্রবেশ করার জন্য বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়েছিলেন।1994  সালে লুইস ব্যাংকস,রঞ্জিত বারোত এবং লেসলে লুইস এদের কাছে সিঙ্গেল গায়ক হিসেবে ডেমো টেপ উপস্থাপন করেন. এই ভাবেই জিংগেল গায়ক হিসেবে তার কর্মজীবন শুরু হয়।ইও ফ্রুটি, পেপসি এ দিল মাঙ্গে মোরে সহ 3500 টিরও বেশি জিংগেল গান গিয়েছিলেন।

প্রথম রেকর্ড(First record)

তিনি তার কর্মজীবনে প্রথম রেকর্ড করার গানগুলি হলকলেজ স্টাইল এবং হ্যালো ডক্টর এছাড়াও এ আর রহমান দ্বারা রচিত দুনিয়া দিল ও আলান কি(1996)এবং একটি তামিল চলচ্চিত কোধল দেশম (1996) এর হিন্দি ডাব করা সংস্করণ।

 শেষ গান (last song)

কে. কে. এর জীবনে সর্বশেষ  যে গানটিতে সুর দিয়েছিলেন সেটি হল 83(2021) চলচ্চিত্রে ‘Yeh Hausle’.

 মিউজিক অ্যালবাম(Music album)

কে. কে.(K.K.) তার জীবনের প্রথম অ্যালবামটি ‘Pal’ মুক্তি পায় 1999 সালে শনি মিউজিক ইন্ডিয়ার মাধ্যমে।এছাড়াও তার অন্যান্য অ্যালবাম গান গুলি হল-

তেলেগু গান(Telugu Song) ‘হ্যালো ডক্টর’, ‘কলেজস্টাইল’ মিউজিক অ্যালবাম গুলি প্রেমা দেশম(1996) চলচ্চিত্রের জন্য গিয়েছিলেন।
আসামিয়া  গান(Assamese Songs)তিনি  অসমীয়া ভাষাতে অনেক গান গেয়েছিলেন। তাদেরই মধ্যে একটি মিউজিক অ্যালবাম হল মন(Mann) যেটি 2000 সালে প্রকাশ পেয়েছিল।

বলিউড গান(Bollywood Songs)

1996 সালে “ছোড় আয়ে হাম গালিয়ান ছোড় আয়ে হাম” গানের মাধ্যমে বলিউডে আত্মপ্রকাশ ঘটে  কে. কে. এর।অনেক বাধা-বিপত্তির মধ্য দিয়েও তিনি বলিউডে তার নিজের একটি জায়গা বানাতে সক্ষম হন।তার সুর দেওয়া বলিউডে উল্লেখযোগ্য গান গুলির মধ্যে কয়েকটি গান হল-

  • দোলা রে দোলা(দেবদাস)
  • কেয়া মুঝে পেয়ার হে(2006)
  • আখোমে তেরি(ওম শান্তি ওম)-2007
  • তুঝে খুঁজতা হু(জান্নাত 2) -2012
  • পিয়া  আয়ে না(আশিকি 2)-2013
  • মাত আজমা রে(মার্ডার 3)-2013
  • ইন্ডিয়া ওয়াল(শুভ নববর্ষ) -2014
  • তু যো মিলা (বজরঙ্গি ভাইজান) -2015 ইত্যাদি 

পুরস্কার/ সম্মান(Award/Honor)

1999  সালে কে কে  এর “Pal” অ্যালবামের জন্য নন ফিল্ম মিউজিক বিভাগে সেরা গায়ক হিসেবে পুরস্কার পান।
 2003 সালে জাতীয় পুরস্কার পান “ঝনকার বিটস” চলচ্চিত্র থেকে তু আশিকি হে গানটির জন্য।
2012 সালে গোল্ডেন ফিল্ম অ্যাওয়ার্ড পান “চলতে জানা হে” গানটির জন্য।
2009  সালে বেস্ট প্লেব্যাক গায়ক হিসেবে পুরস্কার পান বাচনা এ হাসিনো চলচ্চিত্রে “খুদা  জানে” গানটির জন্য।
2005 সালে হাব অ্যাওয়ার্ড পান বেস্ট প্লেব্যাক গায়ক হিসেবেফিল্মফেয়ার অ্যাওয়ার্ড পান 2010 সালে।
ইনম সরালাম গায়ক অব দ্যা ইয়ার(Eanam Swaralaya Singer Of the Year) পুরস্কার পান 2012  সালে।

গার্লফ্রেন্ড/ অ্যাফেয়ার্স(Girlfriend/ Affairs) – কে. কে. এর জীবনী

একটি সাক্ষাৎকারে কে. কে. জানিয়েছেন যে তিনি তার স্ত্রী জ্যোতি লক্ষ্মীকে প্রস্তাব দিয়েছিলেন যে কোন সে ক্লাস 10 এ পড়ে। আস্তে আস্তে তাদের সম্পর্ক আরো বাড়তে থাকে। তিনি জানিয়েছিলেন যে তিনি জ্যোতি এর জন্য তাদের কলোনির এক অনুষ্টানএ একটি গান গেয়ে ছিলেন গান টি হলো “পেয়ার দিওয়ানা হোতা হে”

 জ্যোতি লক্ষ্মীকে বিয়ে করার জন্য কে. কে. সেলসম্যানের চাকরি করতে লাগলো।কেন কি তখনো তিনি বেকার ছিলেন।তিনি 6 মাসেরও বেশি এই সেলসম্যানের চাকরি করেছিলেন। তিনি এক সাক্ষাতকারী বলেন যে-

“জব কারনা জরুরী থা, কিউকি ও জাব মেরেকো বোলতা কেয়া করতে হো,মে যাব বোলতা গাতি হু,ফির ও বোলতা গাতি তো মে ভি হু,কাম কেয়া করতি হো।

পছন্দের জিনিসসমূহ(Favorites)

প্রিয় খাবার দক্ষিণ ভারতীয় এবং ইতালিয়ান
প্রিয় অভিনেতাশাহরুখ খান
 শখভ্রমণ, গান করা
প্রিয় মিউজিক ব্যান্ড Led Zeppelin,Deep Purple,Extreme, Eagles
প্রিয় গায়ককিশোর কুমার,আর ডি বর্মন,মাইকেল জ্যাকসন, বিলি জুয়েল বিলি জুয়েল,ব্রায়ান অ্যাডামস
 প্রিয় গন্তব্যস্থলইতালি 

কে কে এর মৃত্যু(Death of K.K.)

 31মে 2022 দক্ষিণ কলকাতার নজরুল মঞ্চতে একটি লাইভ পারফরমেন্স করেন।এই অনুষ্ঠান চলাকালীন তার স্বাস্থ্যের অবনতি ঘটে এবং তিনি অজ্ঞান হয়ে পড়েন.সঙ্গে সঙ্গে কে. কে. কলকাতা মেডিকেল রিসার্চ ইনস্টিটিউটে  নিয়ে যাওয়া হয়।সেখানে ডাক্তার কে.কে. মৃত বলে ঘোষণা করেন।

প্রাথমিক তথ্যে বলা হচ্ছে যে কে.কে. এর মারা যাওয়ার প্রধান কারণ হলো তার হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে যাওয়ার জন্য কিন্তু এখনো পর্যন্ত মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যায়নি।

মাত্র দুদিনের জন্য তিনি কলকাতায় এসেছিলেন।এই ভাবেই মাত্র 54 বছর বয়সে ভারতের  এই প্রখ্যাত গায়কের মৃত্যু হয়।

নেটওয়ার্থ(net worth) – কে. কে. এর জীবনী

কে. কে.(K.K.) এক একটি গানের জন্য 5 থেকে 6 লাখ টাকা নিতেন এবং একটি লাইভ কনসার্টের জন্য দশ থেকে পনেরো লাখ টাকা চার্জ করতেন।

 তার মোট সম্পত্তির পরিমাণ $1.5M

 তিনি তার পরিবারের জন্য কোটি কোটি টাকার সম্পত্তি রেখে গেছেন।

প্রোফাইল(Profiles)

FacebookKK
InstagramK_K
TwitterTHEKK
WikipediaK K(Singer)

 কে. কে. সম্বন্ধে কম জানা তথ্য(Little known facts about K.K.)

  • কে. কে. এক সাক্ষাৎকারে জানতে চাওয়া হয় যে তিনি কিভাবে গানের প্রতি আগ্রহ তৈরি করেছিলেন।তার উত্তরের পরিপ্রেক্ষিতে তিনি জানান-
    •  “আমি এই সমস্ত ছেলেদের মধ্যে একজন যাদের গানের প্রতি এক অনুরাগ রয়েছে। আমি একটি সংগীত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেছি।আমার  দিদা ছিলেন একজন সংগীত শিক্ষক এবং মা  গান গাইতেন।আমি ছোটবেলা থেকেই গান গাইতাম এবং শিখতাম।”
  • কে.কে. এর জীবনে একটি আশ্চর্যজনক ঘটনা হল যে তিনি কখনোই গান শেখার জন্য প্রশিক্ষণ নেননি।
  • 1980 সালে তিনি  যখন ক্লাস 10 তে পড়তেন তখন জ্যোতি লক্সমির সাথে প্রথম দেখা করেন এবং তার প্রেমে পড়ে যান। 
  • দিল্লিতে তিনি তার জীবনের প্রথম জিংগেল গান “উষা দা নাম্বার ওয়ান” রেকর্ড করেছিলেন এবং এই গানটি মানুষজন পছন্দ করতে লাগলেন।তিনি বুঝেছিলেন যে সংগীততে ক্যারিয়ার শুরু করার জন্য মুম্বাই হল একটিভালো জায়গা।
  • কে.কে. বিভিন্ন সংগীত প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেছেন.তিনি স্কুল এবং কলেজে একটি ব্যান্ডের সদস্য হিসেবে যুক্ত ছিলেন।
  • 1994 সালে তিনি যখন তার ডেমো টেপ উপস্থাপন করেছিলেন সিঙ্গেল  গায়ক হিসেবে।ফলে ইউ টিভি মিডিয়া কোম্পানি থেকে তাকে এক মিনিটের একটি  জিংগেল গাওয়ার জন্য সুযোগ দেন।
  • ইন্ডাস্ট্রির পেমেন্ট এর বিষয়টি নিয়ে কে.কে.(KK) সম্পূর্ণ অজ্ঞ ছিলেন।তাকে জিজ্ঞাসা করা হয় কিন্তু কে কে উত্তর দিতে শঙ্কিত বোধ করে. সেই সময় তাকে 5 আঙুল ফ্ল্যাশ করে দেখানো হয় তখন সে ভেবেছিল হয়তো তাকে 500 টাকা দেয়া হবে।অবশেষে তাকে দেয়া হয় পাঁচ হাজার টাকা যা পেয়ে তিনি খুবই অবাক হয়েছিলেন।
  • 1999সালের বিশ্বকাপে ভারতীয় দলকে উৎসাহ করার জন্য “জোস অফ ইন্ডিয়া” গানটি গিয়েছিলেন।
  • চলচ্চিত্রে সুর দেওয়া ছাড়াও তিনি বিভিন্ন টিভিসওতেও বিচারক হিসেবে দেখা যায় যেমন সাকা লালা বুম বুম(2001), স্টার পরিবার অ্যাওয়ার্ড(2010), জাস্ট ডান্স(2011)।
  • পাকিস্তানের টিভি শো দ্যা ঘোস্ট এর জন্য 2008 সালে “তানহা চালা” গানটি  গেয়েছিলেন।
  • 2005 সালে মিউজিক রিয়েলিটি শো গুরুকুলে একজন বিচারক  হিসেবে দেখা যায়।
  • 1991 সালে  বিবাহের পর হোটেল ইন্ডাস্ট্রিতে মার্কেটিং ডিপার্টমেন্টে কিছুদিন কাজ করেছিলেন।তারপর তিনি মুম্বাই চলে যান।
  • Audi RS5 এর মত বিভিন্ন নামিদামি কোম্পানির গাড়ি রয়েছে।
  • কেকে এর মৃতদেহটি বন্দুকের স্যালুটের সহিত বিমানবন্দরে নিয়ে যাওয়া হয়।তারপর মৃতদেহটি বিমানের মাধ্যমে মুম্বাইতে নিয়ে যাওয়া হয় এবং সেখানেই তার শেষকৃত্য সম্পন্ন করা হয়।

কে. কে. এর জীবনী(K.K. Biography in Bengali) – FAQ

Q-1.কে. কে. এর পুরো নাম কি ?(What is the full name of KK?)

Ans.কে কে এর পুরো নাম হলো কৃষ্ণকুমার কুন্নাথ।

Q-2.কে.কে. কিভাবে মারা গিয়েছিলো?(K.K. How did you die?)

Ans.প্রাথমিক তথ্যে জানা যায় যে কে.কে.(KK) এর হৃদযন্ত্রের কাজ বন্ধ হয়ে যাওয়ার দরুন তিনি মারা যান।

Q-3.কে.কে. এর হোম টাউন কোথায়?(K.K. Where is his Home Town?)

Ans.কে.কে. এর হোম টাউন হল দিল্লি,ভারত।

Q-4.কে ছিলেন এই কে. কে.?(Who was K.K.?)

Ans.কে.কে. ওরফে কৃষ্ণ কুমার কুন্নাথ হলেন একজন ভারতীয় প্লেব্যাক গায়ক।যিনি হিন্দি,তামিল,বাংলা,মারাঠি,কন্নড়,তেলেগু এছাড়াও বিভিন্ন ভাষায় গান গেয়েছেন।

Q-5.মৃত্যু কালীন অবস্থায় কে.কে. এর বয়স কত ছিল?(In the state of death K.K. How old was it?)

Ans.ত্যু কালীন অবস্থায় কে কে এর বয়স ছিল 54 বছর।

কে. কে. এর জীবনী- K.K. Biography in Bengali

অসংখ্য ধন্যবাদ আমাদের এই কে.কে. এর জীবনী K.K. Biography in Bengali পোস্টটি পড়ার জন্য।আমাদের এই পোস্টটি কে. কে. এর জীবনী- K.K. Biography in Bengali – পোস্টটি কেমন লাগলো তা কমেন্টের মাধ্যমে জানাও।যদি কোনো তথ্য আপনাদের ভুল মনে হয়ে থাকে তাহলে মন্তব্য ফর্মটি পূরণ করে আমাদেরকে শেয়ার করতে পারেন।এই ভাবেই bongbio.com এর পাশে থেকো আরো মানুষের জীবনী জানতে সাইট টিকে ফলো করুন।

ধন্যবাদ!

মন্তব্য করুন