ডাঃ জাফরুল্লাহ চৌধুরীর জীবনী 2023 – (Zafrullah Chowdhury Wife, Wiki/Bio, Career & More In Bengali)

ডাক্তার জাফরুল্লাহ চৌধুরী কে? ডাক্তার জাফরুল্লাহ চৌধুরীর জীবনী. বয়স, মৃত্যু, সংক্ষিপ্ত জীবনী, কর্মজীবন, পুরস্কার/ সম্মান শিক্ষাগত যোগ্যতা, মুক্তিযুদ্ধে অবদান এছাড়া জাফরুল্লাহ চৌধুরী সম্পর্কে কিছু কম জানা তথ্য (Doctor Zafarullah Chowdhury? Biography of Doctor Zafrullah Chowdhury. Age, Death, Brief Biography, Career, Awards/Honors Educational Qualification, Contribution to Liberation War Also some lesser known information about Zafrullah Chowdhury & more in Bengali)

ডাক্তার জাফরুল্লাহ চৌধুরী হলেন বাংলাদেশের মহান মুক্তি যুদ্ধের কিংবদন্তি যোদ্ধা। এছাড়াও তিনি হলেন একজন বাংলাদেশী চিকিৎসক এবং জনস্বাস্থ্য সক্রিয়তাবাদী রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব। আপনি যদি ডাক্তার জাফরুল্লাহ চৌধুরীর জীবনী সম্পর্কে জানতে আগ্রহী হন? তাহলে আমাদের এই পোস্টটি “ডা জাফরুল্লাহ চৌধুরীর জীবনীZafrullah Chowdhury Biography in Bengali” পড়ুন। আমাদের এই পোস্টটিতে জাফরুল্লাহ চৌধুরীর জীবনী সম্পর্কিত বিভিন্ন অজানা তথ্য সম্পর্কে জানতে পারবেন।

Table of Contents

“ডা জাফরুল্লাহ চৌধুরীর জীবনীZafrullah Chowdhury Biography in Bengali

ডাক্তার জাফরুল্লাহ চৌধুরী কে? (Who is Dr. Zafrullah journalist Chowdhury?)

ডক্টর জাফরুল্লাহ চৌধুরীর জীবনী - Zafrullah chowdhury biography in bengali

ডাক্তার জাফরুল্লাহ চৌধুরী হলেন একজন বাংলাদেশী জনস্বাস্থ্য সক্রিয়তাবাদী রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব এবং মুক্তিযোদ্ধা। তিনি একজন বাংলাদেশের স্বনামধন্য চিকিৎসক। এছাড়া তিনি বাংলাদেশের বুকে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র নামক স্বাস্থ্য বিষয়ক এনজিওর প্রতিষ্ঠাতা। ডক্টর জাফরুল্লাহ রণাঙ্গনে ফিল্ড হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা করে তিনি অসংখ্য আহত এবং মুক্তিযোদ্ধাদের প্রাণ বাঁচিয়েছেন। জাতির যে সমস্ত সাহসী বীর সূর্য সন্তান বর্তমানের স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ গড়ার নেপথে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে তাদের মধ্যে ডঃ জাফরুল্লাহ হলেন অন্যতম।

ডাঃ জাফরুল্লাহ  চিকিৎসা খাতের প্রধান ব্যবসায়ী হতে পারতেন কিন্তু ডক্টর জাফরুল্লাহ মহাশয় ভিন্ন ধাতুতে গড়া এক লড়াকু মানুষ।তিনি নিজেকে গণমানুষের স্বাস্থ্য খাতের উন্নয়নে নিয়োজিত করেছেন।

ডক্টর জাফরুল্লাহ চৌধুরীর সংক্ষিপ্ত জীবনী (Brief biography of Dr. Zafrullah Chowdhury)

 প্রকৃত নাম  জাফরুল্লাহ চৌধুরী
 বাবার নামহুমায়ুন মুর্শিদ চৌধুরী (পুলিশ কর্মকর্তা)
 জন্ম তারিখ 27 ডিসেম্বর 1941
 বয়স 81 বছর (2023 সাল অনুযায়ী)
 জন্মস্থানরাউজান উপজেলা, চট্টগ্রাম,বাংলাদেশ
জাতীয়তাবাংলাদেশী
পেশাচিকিৎসক
 পুরস্কার স্বাধীনতা পুরস্কার 1977
মৃত্যু 11 এপ্রিল 2023
পরিচিতির কারণ সমাজসেবা
উল্লেখযোগ্য কর্ম দ্য পলিটিক্স অফ এসেনশিয়াল ড্রাগস: দ্য মেকিংস অফ আ সাকসেসফুল হেলথ স্ট্রাটেজি: লেসনস ফ্রম বাংলাদেশ (1996)

শারীরিক পরিসংখ্যান (Physical statistics)

 আপনি কি এই বাংলাদেশের মুক্তিযোদ্ধা ডাঃ জাকিরুল্লাহ চৌধুরীর শারীরিক পরিসংখ্যান তথা উচ্চতা, ওজন এছাড়া অন্যান্য তথ্য সম্পর্কে জানতে আগ্রহী? তাহলে নিচের টেবিলটি দেখুন –

 উচ্চতা
  সেন্টিমিটারে – 173 সেমি
 মিটারে – 1.73 মি
 ফুট ইঞ্চিতে – 5 ফুট 7 ইঞ্চি
ওজনপাউন্ডে – 143 পাউন্ড
 কেজিতে – 65 কেজি
 (সময়ের সাথে সাথে এটি পরিবর্তিত হতে পারে)
চোখের রংকালো
 গায়ের রংকালো
 চুলের রং হালকা কালো সাদা

 বাবা-মা এবং আত্মীয়-স্বজন (Parents and relatives)

 ডাঃ জাফরুল্লাহ চৌধুরীর পিতা হলেন হুমায়ুন মুর্শিদ চৌধুরী (পুলিশ কর্মকর্তা)। তিনি পিতা-মাতার দশজন সন্তানদের মধ্যে সবচেয়ে বড় সন্তান। ছোটবেলা থেকেই জাফর উল্লাহ পিতা হুমায়ুন মুর্শিদ চৌধুরী(পুলিশ কর্মকর্তা) এর মত বিপ্লবী মনোভাব ছিল।

বাবার নামহুমায়ুন মুর্শিদ চৌধুরী (পুলিশ কর্মকর্তা)
 মায়ের নাম হাসিনা বেগম চৌধুরী

শিক্ষাগত যোগ্যতা (Educational qualification)

জাফরুল্লাহ ছোটবেলা থেকেই পড়াশোনাতে একজন মেধাবী ছাত্র হিসেবে পরিচিত। ছোটবেলা থেকেই নতুন জিনিস জানতে এবং পড়তে ভালোবাসতেন জাফরুল্লাহ। তিনি ঢাকার বকশী বাজারের নবকুমার স্কুল থেকে মেট্রিকুলেশন পাস করেছেন এবং তারপর তিনি ঢাকা কলেজ থেকে ইন্টারমিডিয়েটে উত্তীর্ণ হওয়ার পর 1964 সালে ঢাকা মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস পাস করেন। এরপর তিনি বিলেতের রয়েল কলেজ থেকে 1967 সালে জেনারেল ও ভাসকুলার সার্জারিতে এসআর সিএস প্রাইমারি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন।

কিন্তু তিনি পড়াশুনো শেষ না করেই মুক্তি যুদ্ধে অংশ নেয়ার জন্য দেশে ফিরে আসেন। এছাড়াও তিনি বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন জেটি ব্রিটেনের প্রথম বাংলাদেশি সংগঠন ছিল। ডক্টর জাফরুল্লাহ হলেন এর প্রতিষ্ঠাতা এবং সাধারণ সম্পাদক।

 বিদ্যালয় বকশিবাজার নবকুমার স্কুল (মেট্রিকুলেশন)
কলেজ/ বিশ্ববিদ্যালয় ঢাকা মেডিকেল কলেজ (এমবিবিএস)
রয়েল কলেজ অফ সার্জনস (লন্ডন)
 শিক্ষাগত যোগ্যতাএমবিবিএস

মুক্তিযুদ্ধে অবদান (Contribution to the liberation war)

ষাটের দশকে চিকিৎসক জাফরুল্লাহ চৌধুরী যখন লন্ডনের রয়েল কলেজ অফ সার্জনস এ উচ্চশিক্ষায় শিক্ষিত হচ্ছিলেন সেই মুহূর্তে গোটা দেশ স্বাধীনতা পাওয়ার জন্য উত্তাল হয়ে ওঠে। সেই মুহূর্তে দেশে চলতে থাকে প্রকাণ্ড যুদ্ধ. প্রচুর মানুষও মারা যান এইরূপ ঘটনার দরুন। এই সমস্ত ঘটনার তথ্যগুলি ডক্টর জাফরুল্লাহ চৌধুরীর কানে পৌঁছানোর পরেই তিনি পড়াশুনো শেষ না করেই দেশে ফিরে আসেন এবং মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। 

একজন মুক্তিযোদ্ধা থেকে হয়ে ওঠেন রণাঙ্গনের চিকিৎসক। সেই সময় তার সাথে ছিলেন তার বন্ধু এনএ নবীন. সেই সময় ত্রিপুরার মেলাঘরে গড়ে তোলেন প্রায় 500 বেডের একটি ফিল্ড হাসপাতাল। যেখানে মুক্তির যুদ্ধে আহত বীর যোদ্ধাদের সেবা করা হতো।

ডক্টর জাফরুল্লাহ চৌধুরী প্রথম গ্রামে স্বাস্থ্য বীমা ব্যবস্থা চালু করেন। 1992 সালে ওষুধনীতির প্রধান রূপকার হলেন ডক্টর জাফরুল্লাহ চৌধুরী। যার ফলে একটি শক্ত ভীত পায় বাংলাদেশ এবং ওষুধের দামও আগে তুলনায় অনেক কমে যায়।

একা বিংশ শতাব্দীর এই সময়েও স্বাস্থ্য এ ভাই নতুন ইতিহাস সৃষ্টি করেছিলেন ডঃ জাফরুল্লাহ চৌধুরী। দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে বড় ডায়ালিসিস সেন্টার ঢাকায় গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতালে গড়ে তুলেছিলেন। 

ডাঃ জাফরুল্লাহ চৌধুরীর এই সমস্ত সেবা পদ্ধতি পরে বিশ্ব বিখ্যাত জার্নাল পেপার “ল্যানসেট” তে প্রকাশিত হয়।

স্বাধীন বাংলাদেশের চিকিৎসা  পদ্ধতির নতুন আবির্ভাব (A New Emergence of Medical Systems in Independent Bangladesh)

 90 দশকের পর থেকে চিকিৎসা পদ্ধতি যখন বাণিজ্য হতে শুরু করল।সেই মুহূর্তে ডক্টর জাফিরুল্লাহ চৌধুরী যতটা কম পরিমাণে সাধারণ মানুষের কাছে চিকিৎসা পৌঁছে দিতে পারেন তার চেষ্টা তিনি করেছিলেন।

যেমন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ঢাকার হাসপাতালে সন্তান প্রসবের জন্য মোট খরচ 2 হাজার টাকা। যদি সিজারিয়ান পদ্ধতিতে করা হয় তাহলে মোট খরচ 12 থেকে 14 হাজার টাকাডাক্তার ওষুধ এবং প্যাথলেজিক্যাল পরীক্ষার জন্য বাড়তি কোনো খরচ নেই। এছাড়াও জটিলতা না দেখলে সিজার করা হয় না।

ডক্টর জাফিরুল্লাহ চৌধুরী 1981 সালে গড়ে তোলেন আধুনিক গণস্বাস্থ্য ফার্মাসিউটিক্যাল। এই ফার্মাসিউটিকেলে উৎপাদিত সমস্ত ওষুধের দাম অন্যান্য সব ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানির ওষুধের দামের চেয়ে প্রায় অর্ধেক।

ডক্টর জাফিরুল্লাহ চৌধুরী নিজেই কিডনি রোগী হওয়ার কারণে সপ্তাহে প্রায় তিনবার ডায়ালিসিস করতে হতো। কিডনির ডায়ালিসিসের জন্য অপরিহার্য ইনজেকশনটি হলো হেপারিন যেটির বাজারে দাম 350 থেকে 450 টাকা কিন্তু গণস্বাস্থ্য ফার্মাসিউটিক্যাল এ উৎপাদিত হেপারিন এর দাম প্রায় 200 টাকা। যেটি সাধারণ গরিব মানুষদের ক্ষেত্রে ক্রয় করা সহজ ছিল।

এছাড়াও কোলেস্টেরল কমানোর জন্য সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত ওষুধ হলো অ্যাট্রভস্টিন যার বাজার মূল্য 11 টাকার কাছাকাছি কিন্তু গণস্বাস্থ্য ফার্মাসিউটিক্যালে এর দাম 7 টাকা।

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রে প্রতিদিন প্রায় আড়াইশো জনের কাছাকাছি কিডনি রোগীর ডায়ালিসিস করা হয় যার মধ্যে 10 থেকে 12 শতাংশই থাকে দরিদ্র মানুষ। এই সমস্ত দরিদ্র মানুষ করে ডায়ালিসিস করা হয় সম্পূর্ণ বিনামূল্যে। এছাড়াও কিডনি ডায়ালাইসিস এর জন্য যতটা সম্ভব কম খরচে করা যায় সেটি করা হতো। 

স্বাধীনতার পর থেকেই ডক্টর জাফিরুল্লাহ চৌধুরী দেশীয় ওষুধ শিল্প গড়ে তোলার স্বপ্ন দেখেছিলেন. এই বিষয়ে কথাও বলেছিলেন বঙ্গবন্ধুর সাথে। অবশেষে 1982 সালে তিনি ঔষধ  নীতি প্রণয়ন করেন।

ডাঃ জাফরুল্লাহ চৌধুরীর সন্তান (Son of Dr. Zafrullah Chowdhury)

ডাঃ জাফরুল্লাহ চৌধুরীর স্ত্রীর নাম হলো শিরিন হোক। যিনি একজন নারী অধিকার কর্মী। ডক্টর জাফরুল্লাহ চৌধুরীর একটি ছেলে এবং একটি মেয়ে রয়েছে কিন্তু তাদের নাম জানা যায়নি।

পুরস্কার/ সম্মান (Award/Honor)

 ডাঃ জাফরুল্লাহ চৌধুরী সমাজ সেবার জন্য দেশবিদেশ থেকে বিভিন্ন পুরস্কার লাভ করেছিলেন।

 তার পাওয়া পুরস্কার গুলি হল –

 সুইডিস ইয়ুথ পিস প্রাইজ – 1974 সালে
 1977 সালে- স্বাধীনতা দিবস পুরস্কার
1985 সালে ফিলিপাইন থেকে রামন ম্যাক্স সাই পুরস্কার
লাইভ লাই হুড  পুরস্কার 1992 সুইডেনে
ইন্টারন্যাশনাল পাবলিক হেলথ হিরোজ যুক্তরাষ্ট্র থেকে লাভ করেন 2010 সালে

ডাঃ  জাফরুল্লাহ চৌধুরী গরিবের ডাক্তার নামে পরিচিত। তিনি বলেছেন এই সমস্ত প্রাপ্য পুরস্কার গুলি শুধুমাত্র আমার নয়। এই সমস্ত পুরস্কার গুলি সমস্ত বাংলাদেশের মানুষের।

 এছাড়াও মানব সেবার জন্য কানাড়া থেকে সম্মানসূচক ডক্টরের ডিগ্রী পেয়েছেন ডক্টর জাফরুল্লাহ চৌধুরী। এছাড়াও 2021 সালে আহমদ শরীফ স্মারক  পুরস্কার পান

মৃত্যু (death)

ডাঃ জাফরুল্লাহ চৌধুরী দীর্ঘদিন ধরে কিডনির সমস্যায় ভুগছিলেন।

অবশেষে 2023 সালে 11 এপ্রিল ঢাকার গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন। মৃত্যুকালীন অবস্থায় তার বয়স ছিল 81 বছর।

“ডা জাফরুল্লাহ চৌধুরীর জীবনীZafrullah Chowdhury Biography In Bengali” – FAQ

Q-1.ডাঃ জাফরুল্লাহ চৌধুরীর স্ত্রীর নাম কি? (What is the name of Dr. Zafrullah Chowdhury’s wife?)

Ans.ডাঃ জাফরুল্লাহ চৌধুরীর স্ত্রীর নাম হলো শিরিন হোক। যিনি একজন নারী অধিকার কর্মী।

Q-2.ডাঃ জাফরুল্লাহ চৌধুরীর সন্তানের নাম কি ?(What is the name of Dr. Zafrullah Chowdhury’s child?)

Ans.ডক্টর জাফরুল্লাহ চৌধুরীর একটি ছেলে এবং একটি মেয়ে রয়েছে কিন্তু তাদের নাম জানা যায়নি।

Q-3.কবে ডাঃ জাফরুল্লাহ চৌধুরীর মৃত্যু হয়েছে ?(When did Dr. Zafrullah Chowdhury die?)

Ans.2023 সালে 11 এপ্রিল ঢাকার গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন.মৃত্যুকালীন অবস্থায় তার বয়স ছিল 1 বছর।

Q-4.ডাঃ জাফরুল্লাহ চৌধুরীর পরিবারের সদস্য সংখ্যা কত?(What is the number of family members of Dr. Zafrullah Chowdhury?)

Ans.ডাঃ জাফরুল্লাহ চৌধুরীর পরিবারের সদস্য সংখ্যা হল মোট চারজন।

“ডা জাফরুল্লাহ চৌধুরীর জীবনীZafrullah Chowdhury Biography in Bengali

অসংখ্য ধন্যবাদ আমাদের এই পোস্টটি “ডা জাফরুল্লাহ চৌধুরীর জীবনীZafrullah Chowdhury Biography in Bengali” পড়ার জন্য।এই পোস্টটি “ডা জাফরুল্লাহ চৌধুরীর জীবনীZafrullah Chowdhury Biography in Bengali” কেমন লাগলো তা কমেন্টের মাধ্যমে জানান। আশা করি পোস্টটি আপনাদের কে শাস্তি সম্পর্কে অনেক তথ্য জানতে সাহায্য করেছে।আমরা এই সমস্ত তথ্যগুলি অনেক রকম ভাবে ভালোভাবে অনুসন্ধান করে সঠিক তথ্য দেওয়ার চেষ্টা করি।যদি কোনো তথ্য ভুল মনে হয়ে থাকে তাহলে মন্তব্য ফর্মটি পূরণ করে আমাদেরকে শেয়ার করতে পারেন।এরকম আরো মানুষের জীবনী সম্পর্কে জানতে আমাদের এই সাইটটিকে bongbio.com ফলো করুন।

ধন্যবাদ!

মন্তব্য করুন